Templates by BIGtheme NET

পর্যটন কেন্দ্র হতে পারে ভাসমান পেয়ারার হাট

বিএনএস টাইমস,নিজস্ব প্রতিবেদক: পেয়ারা বেচা-কেনায় জমে উঠেছে ঝালকাঠি সদরের ভীমরুলী-ডুমুরিয়া ভাসমান হাট। বিভিন্ন জেলার ব্যবসায়ীরা এ ভাসমান হাটে পেয়ারা কিনতে আসেন। সেইসঙ্গে হাট দেখতে ভিড় করছেন পর্যটকরাও। সংশ্লিষ্টরা মনে করেন থাকা-খাওয়ার সুব্যবস্থা থাকলে পর্যটক ও ব্যবসায়ীদের মিলনমেলায় পরিণত হবে জায়গাটি।

এবার ঝালকাঠি সদর উপজলার ২০টি গ্রামে প্রায় ৫শ’ হেক্টর জমিতে পেয়ারা চাষ হয়েছে। এবছর পেয়ারার ফলনও বেশ ভালো। বছরের ১২ মাসই এ অঞ্চল পানি বেষ্টিত থাকায় পেয়ারা বিক্রিতে ভাসমান হাটই ভরসা চাষিদের।

তবে জেলার বিভিন্ন স্থানে ভাসমান হাট থাকলেও সদর উপজেলার ভীমরুলী-ডুমুরিয়ায় সবচেয়ে বড় হাট বসে। পুরোদমে বেচা-কেনা চলে ভাসমান এ হাটে। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে পাইকাররা এসে ভাসমান হাট থেকে পেয়ারা কিনে নিয়ে যাচ্ছেন। আর এই হাট দেখতে প্রতিদিন ভিড় করছেন হাজারো পর্যটক।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, এখানে পেয়ারা বেচা-কেনার ব্যবস্থাটা খুব সুন্দর। সেইসঙ্গে আমারা এক বিঘা জমি থেকে ১৫-২০ হাজার টাকা পাই। তারা আরো জানান, গেলো দু’বছর ধরে বিদেশিসহ এখানে প্রচুর পর্যটক আসেন।

এমনি এক বিদেশি পর্যটক আরটিভি অনলাইনকে জানান, এই স্থানটিকে আমি ভালোবাসি। জায়গাটা খুবই সুন্দর ও সবুজ। তাই বারবার এখানে আসতে ইচ্ছে করে।তবে থাকা-খাওয়ার সুব্যবস্থা না-থাকায় বিপাকে পড়তে হচ্ছে পর্যটক ও ব্যবসায়ীদের। এই অসুবিধা থাকা সত্ত্বেও অনেকেই আসেন এই পেয়ারা বাগান দেখতে।

বাগান দেখতে আসা এক তরুণী জানান, আমাদের সবারই উচিত এই পেয়ারা বাগানে এসে বছরে একবার ভিজিট করা।

এদিকে পেয়ারা নিয়ে ঝালকাঠিকে ব্র্যান্ডিংয়ের জন্য প্রচার-প্রচারণা চালানো হচ্ছে বলে জানালেন ঝালকাঠি কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক শেখ আবু বকর সিদ্দিক। তিনি জানান, পেয়ারা ও শীতল পাটির জন্য ঝালকাঠিকে ব্র্যান্ডিং করা হয়েছে। পেয়ারা ও শীতল পাটির উন্নয়নে কাজ চলছে। পেয়ারার আবাদ যেনো বাড়ে সে ব্যাপারেও চেষ্টা চালিয়ে যাওয়া হচ্ছে।

সুযোগ-সুবিধা বাড়ানো হলে ভাসমান এই হাটটি পর্যটন স্পট হিসেবে গড়ে তোলা সম্ভব বলে মনে করছেন স্থানীয় লোকজন।

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful